নির্বাচন না প্রহসন?

Print Friendly

সেদিন আমার স্কুলশিক্ষক ছোট মামা ফোন করলেন। বললেন, তাদের এলাকার এক ভদ্রলোক আমার সঙ্গে কথা বলতে চান।

তাকে যেন একটু হেল্প করি। আমি সানন্দে রাজি। দুটি কারণে, প্রথমত সুযোগ থাকলে আমি পরিচিত-অপরিচিত নির্বিশেষে সবাইকে সাহায্য করার চেষ্টা করি। দ্বিতীয়ত যিনি আমার সঙ্গে কথা বলবেন, তিনি আমার জন্ম এলাকার লোক। মামা বাড়িতেই আমার জন্ম হয়েছিল। একটু পর এক ভদ্রলোক ফোন করলেন, বললেন, আপনি কি রঘুনাথপুর চেনেন? রঘুনাথপুর শুনেই আমার স্মৃতির পুকুরে উথাল-পাথাল ঢেউ। রঘুনাথপুরের সঙ্গে যে আমার নাড়ির সম্পর্ক, তাকে কি ভোলা যায়। কিছুক্ষণের মধ্যে তিনি অফিসে এলেন। তার প্রয়োজন রেখে আমি রঘুনাথপুরের গল্প শুনতেই ব্যস্ত হয়ে গেলাম। এখন কেমন হয়েছে? লোকজন কে, কেমন আছে? ইত্যাদি ইত্যাদি। ১৯৬৯ সালে আমার জন্মের সময় রঘুনাথপুর ছিল বিচ্ছিন্ন এক অজোপাড়াগাঁ। নব্বইয়ের দশক পর্যন্ত রঘুনাথপুরে যেতে হতো বর্ষাকালে নৌকায় আর গ্রীষ্মকালে হেঁটে। ইলিয়টগঞ্জ থেকে ১২ থেকে ১৫ কিলোমিটার পথ। মামা বাড়ি যাওয়ার সেই আনন্দ স্মৃতি এখনো আপ্লুত করে আমাকে। খর রৌদ্রে হেঁটে যাওয়াটা অনেক কষ্টকর ছিল। পথে পথে বটগাছের ছায়ায় বিশ্রাম নিতাম। হাঁটতে হাঁটতে আশপাশের বাড়ি থেকে পানি খেয়ে তৃষ্ণা মেটাতাম। কিন্তু মামা বাড়ি যাওয়ার আনন্দের কাছে সব তুচ্ছ মনে হতো। নৌকায় যাওয়ার আনন্দটা ছিল আরও বেশি। আম্মা বসতেন ছই দেওয়া নৌকার ভিতরে। আমরা বসতাম বাইরে। আব্বা-আম্মার নিষেধ না মেনে টুক করে হাত দিয়ে নদীর পানি ছুঁয়ে দিতাম। কখনো চট করে টান দিয়ে শাপলা তুলে নিতাম। নদীতে যে কত রকমের ফুল ফুটত তার ইয়ত্তা নেই। সেই কালাডুমুর নদীতে পাল তোলা নৌকা চলত, চলত গুন টানা নৌকাও। তারপর উন্নয়নের জোয়ারে ভেসে গেছে সবকিছু। এখন নাকি মামা বাড়ির উঠান পর্যন্ত গাড়ি নিয়ে যাওয়া যায়। হায়, কিন্তু এখন আর আমার যাওয়ার সময় নেই। রঘুনাথপুর থেকে ছালিয়াকান্দি আড়ঙে যেতেও কালাডুমুর নদী পেরুতে হতো। সে নদীতে স্থায়ী খেয়া নৌকা ছিল। সে নৌকায় কোনো মাঝি ছিল না। নদীর দুই তীরে লম্বা দড়িতে বাঁধা থাকত খেয়া নৌকা। নৌকায় উঠে দড়ি টেনে টেনে অপর পাড়ে যেতে হতো।
স্মৃতি হাতড়ানো শেষে ফিরলাম বর্তমানে। জানতে চাইলাম, আমি কীভাবে হেল্প করতে পারি? জানালেন, তিনি এবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চান। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চান। আমি কীভাবে হেল্প করতে পারি, বুঝতে পারলাম না। ভেবেছি, হয়তো নির্বাচনের সময় কাভারেজ-টাভারেজ চাইবেন। কিন্তু সেটা অনেক পরের ব্যাপার। তিনি এখন চান মনোনয়ন, মার্কা। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের জন্য খরচের লিমিট কত আমি জানি না। তিনি নাকি ভেবেছিলেন ৫০-৬০ লাখ টাকা খরচ করলে হবে। এখন নাকি দেখছেন, বেরিয়ে যেতে হলে আরও বেশি খরচ করতে হবে। শুনে আমার তো চেয়ার থেকে পড়ে যাওয়ার দশা। গ্রাম থেকে আসা এই সাধাসিধা বেশভূষার লোক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হওয়ার জন্য ৬০-৭০ লাখ টাকা খরচ করতে তৈরি। আমার একটু ভয়ই লাগল। যদি দলের মনোনয়ন না পান, যদি ফেল করেন! নির্বাচনে তো কোনো দ্বিতীয় নেই। ফেল করলে তো তার এই ৬০-৭০ লাখ টাকাই লস। তিনি জানালেন, মার্কায় ইলেকশনের কারণে এখন খরচ বেড়ে গেছে। আমি এতদিন ভেবেছিলাম উল্টো। মার্কার তো একটা নিজস্ব পরিচিতি আছে। মার্কার ইলেকশনে নিশ্চয়ই প্রচারণা কম হবে। তিনি মানলেন আমার কথা, আওয়ামী লীগের মার্কা পেলে জয় অনেকটাই নিশ্চিত। তবে মূল খরচটা তো নির্বাচনের আগে। অবাক হয়ে বললাম, আগে আবার কিসের খরচ? তিনি বললেন, নমিনেশন কিনতেই তো আসল খরচ। এবার আমার চমক আকাশে উঠল। তিনি জানালেন, নমিনেশন কিনতে টাকা দিতে হয়। তিনি টাকা দিতেও চান। তবে এমন কাউকে দিতে চান, যাতে নমিনেশন নিশ্চিত হয়। তিনি আসলে আমার কাছে এসেছেন, টাকা দিলে নমিনেশন পাবেন, এমন নিশ্চিত কারও হাতে টাকা দিতে। এ ব্যাপারে আমি কোনো হেল্প করতে পারি কিনা। বিস্ময় গোপন করে অপারগতা জানিয়ে তাকে বিদায় করলাম। কিন্তু বিস্ময়ের ঘোর কাটছে না এখনো। টাকা দিলেই নমিনেশন মেলে! বাহ। তাহলে রাজনীতি না করে, টাকা কামালেই হয়। এমনিতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন দেশের সবচেয়ে উৎসবমুখর নির্বাচন। তৃণমূল পর্যায়ের এই নির্বাচনে প্রার্থী থাকে বেশি, সব প্রার্থীই সব ভোটারকে ব্যক্তিগতভাবে চেনেন। তাই ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যান ভোট চাইতে। ফলে এই নির্বাচনে জনমানুষের সম্পৃক্ততাও থাকে বেশি। এবারই প্রথম দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হচ্ছে। তাই নির্বাচনে রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা অনেক বেড়েছে। ’৭৮ বা ’৭৯ সালে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের স্মৃতি এখনো ভুলিনি। উঠানে উঠানে মিছিল করে ভোট চাইতেন বিভিন্ন প্রার্থীর সমর্থকরা। আমরা ছোটরা সব মিছিলেই স্লোগানে গলা মেলাতাম। প্রার্থী নয়, স্লোগানের ছন্দটাই আমাদের টানত বেশি।

দেশে আবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনী উৎসব। পাঁচ ধাপে অনুষ্ঠিত হবে ৪ হাজার ২৭৫টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। ইতিমধ্যে প্রথম দুই ধাপ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিন্তু নির্বাচনের উৎসবে লেগেছে রক্তের ছোঁয়া। প্রথম দুই ধাপেই ৩২ জন মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। আগেই বলেছি, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী বেশি, তাই ভোটারদের সম্পৃক্ততাও বেশি। তাই সহিংসতাও এই নির্বাচনে বেশি হয়। কিন্তু কোনো যুক্তি, পরিসংখ্যান বা উদাহরণই ৩২ জন মানুষের মৃত্যুর অপরাধের দায় থেকে আমাদের মুক্তি দেবে না। ৩২ সংখ্যাটি আমাদের কাছে নিছক একটি পরিসংখ্যান। বাকি তিন ধাপ নির্বাচনের পর এ সংখ্যা হয়তো আরও বাড়বে। কিন্তু এই ৩২টি পরিবারের কাছে, তাদের স্বজনদের মৃত্যুর কষ্ট, ক্ষতি অপূরণীয়। কেরানীগঞ্জে ৯ বছর বয়সী শিশু শুভ কাজী নিছক নির্বাচনী উৎসব দেখতে গিয়ে মারা গেছে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। সংস্কার হচ্ছে নানা প্রতিষ্ঠানে। নির্বাচনে মানুষের মৃত্যু ঠেকানোরও কোনো না কোনো কৌশল বের করতে হবে। নির্বাচন হলেই যদি মানুষ মারা যায়, তাহলে এমন নির্বাচন আমরা চাই না। নির্বাচনের চেয়ে মানুষের জীবনের মূল্য অনেক বেশি। আসলে প্রতিটি মানুষের জীবনই অমূল্য। বিজ্ঞান সবকিছু দিতে পেরেছে, কিন্তু মানুষের জীবন নয়। তাই যা আপনি দিতে পারবেন না, তা নিতেও পারবেন না। শুধু মৃত্যুর সংখ্যায় নয়, নানা রকমের নির্বাচনী অনিয়ম; এবারের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কলঙ্কিত করেছে। নির্বাচনী অনিয়ম বাংলাদেশের সমান বয়সী। এমনকি ’৭৩ সালে প্রথম সংসদ নির্বাচনেও নানা অনিয়ম হয়েছিল। দাউদকান্দিতে জাসদের রশিদ ইঞ্জিনিয়ারকে হারাতে ব্যালট বাক্স হেলিকপ্টারে ঢাকায় এনে খন্দকার মোশতাককে জেতানো হয়েছিল। তবে ’৭৫-এর পর জিয়া ও এরশাদের সামরিক শাসনামলে গোটা নির্বাচনী ব্যবস্থাই দুমড়ে-মুচড়ে গিয়েছিল। ৯০ ভাগ ভোট পাওয়ার মতো অবিশ্বাস্য ঘটনাও ঘটেছে তখন। ‘হোন্ডা-গুণ্ডা-ডাণ্ডা, নির্বাচন ঠাণ্ডা’ এই ছিল তখনকার স্লোগান। এরশাদ পতনের পর গণতন্ত্রের নবযাত্রায় নির্বাচনী ব্যবস্থারও দারুণ উন্নতি হয়েছিল। তবে রাজনীতিবিদদের অবিশ্বাস সেই ব্যবস্থাকেও কলঙ্কিত করেছে। রাজনীতিবিদরা ভালো নির্বাচন করতে পারে না, ব্যর্থতার এই দায় কাঁধে নিয়ে ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনের পর রাজনীতিবিদরা তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা নিয়ে আসেন। সেই ব্যবস্থাও এখন অকার্যকর, রাজনীতির গিট্ঠু।

বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর প্রথম দফায় সব উপনির্বাচন, স্থানীয় সরকার নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে। এমনকি ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে অনুষ্ঠিত পাঁচ সিটি করপোরেশন নির্বাচনেও সরকারি দলের প্রার্থীরা হেরেছিল। অনেকে বলেন, দলীয় সরকারের অধীনেও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব, এটা প্রমাণ করতেই সে নির্বাচন সুষ্ঠু করেছিল আওয়ামী লীগ। কিন্তু এরপরও যখন বিএনপি নির্বাচনে এলো না, তখন ভালোত্বের মুখোশটুকু ঝেড়ে ফেলে মাঠে নেমেছে আওয়ামী লীগ। ৫ জানুয়ারির প্রার্থীবিহীন-ভোটারবিহীন নির্বাচনের পর উপজেলা নির্বাচন, সিটি করপোরেশন নির্বাচন, পৌরসভা নির্বাচন এবং সর্বশেষ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনও হচ্ছে সেই পথ ধরেই। মারপিট, সহিংসতা, সিল মারা, এজেন্টদের বের করে দেওয়া, ভোটারদের ভয় দেখানো— এসবই আশির দশকের সেই নির্বাচনী প্রহসনের কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে। আওয়ামী লীগের ৮৩৮-এর পাশাপাশি বিএনপির মাত্র ৯৬ জন প্রার্থী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছে। সবকিছুই এখন একতরফা, আওয়ামী লীগের নিয়ন্ত্রণে; তাহলে আর এমন একতরফা একটি নির্বাচন করে মানুষের জীবনকে ঝুঁকির মুখে ফেলে, মৃত্যুর সংখ্যা বাড়িয়ে লাভ কী? তারচেয়ে ভালো আওয়ামী লীগের মনোনীতদের নামের তালিকা ঘোষণা করা হোক এবং তাদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত বলে গণ্য করা হোক। তাতে অর্থ বাঁচে, সময় বাঁচে, সবচেয়ে বড় কথা মানুষের জীবন বাঁচে।

লেখক : সাংবাদিক।
প্রভাষ আমিন
probhash2000@gmail.com