প্রধানমন্ত্রীর নিশ্চয়তা পেয়েই আসছে ইংল্যান্ড দল

Print Friendly

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগতভাবে নিশ্চয়তা দেয়ায় পর একটি পূর্ণাঙ্গ ক্রিকেট সিরিজ খেলার জন্য বাংলাদেশ সফরে আসতে সম্মত হয়েছে ইংল্যান্ডের জাতীয় ক্রিকেট দল। আজ শুক্রবার দুপুরে গুলশানে নিজ বাসভবনে আয়োজিত এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এমপি। তিনি বলেন, নিরাপত্তার নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগতভাবে নিশ্চয়তা দেয়ায় বাংলাদেশ সফরে রাজী হয়েছে ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল। এজন্য তিনি শেখ হাসিনা ও দেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। একই সাথে ইংল্যান্ড থেকে দলের সাথে আসা তাদের পরিবারের সদস্য, সাংবাদিক, দর্শক-সমর্থকদেরও পর্যাপ্ত নিরাপত্তার আশ্বা দিলেন তিনি।
বিসিবি সভাপতি বলেন, ইংল্যান্ডকে যে মানের নিরাপত্তা পরিকল্পনার কথা বলা হয়েছে সেটি পৃথিবীর আর কেউই দেয় না। তিনি বলেন, এ মহুর্তে পৃথিবীর কোনও দেশই কিন্তু নিরাপদ না। যে কোনও জায়গায় এমন কিছু হতে পারে। কোথায় হবে, কবে হবে এটা কেউ জানে না। আর আমার ধারণা ছিল এর চেয়ে ভালো নিরাপত্তা পরিকল্পনা কেউ করতে পারবে না। ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের প্রশংসা করে পাপন বলেন, আমাদের কাছে মনে হয়েছে ইংল্যান্ড সাধারণত এ ধরণের সন্ত্রাসের কাছে মাথা নত করার মতো না। অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়া না আসলেও তারা এসেছে। ভারতেও একবার এ ধরনের ঘটনায় তারা সিরিজ বাতিল করেনি।
খবরে প্রকাশ, ইতোমধ্যেই বাংলাদেশে খেলতে আসার ব্যাপারে সবুজ সঙ্কেত দিয়েছে ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি)। নিরাপত্তা প্রতিনিধিরা বাংলাদেশ ঘুরে গিয়ে ক্রিকেটারদের সাথে আলাপ-আলোচনা করে বাংলাদেশে আসার ব্যাপারে এ সবুজ সংকেত দিলো। বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার দিবাগত মধ্যরাতে শেষ হওয়া সে বৈঠকের পর ইসিবি এক টুইটে জানায়, পরিকল্পনা অনুযায়ীই হবে বাংলাদেশ সফর।সম্প্রতি বাংলাদেশের ঘুরে যাওয়া ৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল ইংল্যান্ডের ওয়ানডে দলকে বৃহস্পতিবার ব্রিফিং করেন। ইসিবির নিরাপত্তা উপদেষ্টা রেজ ডিকাসন, ইসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের পরিচালক জন কার ও ইংল্যান্ডের পেশাদার ক্রিকেটারদের সংগঠন পিসিএর প্রধান নির্বাহী ডেভিড লেথারডেল বাংলাদেশের নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে ক্রিকেটারদের সঙ্গে কথা বলেন।
ইংল্যান্ডের ওয়ানডে দল প্রথম বাংলাদেশ সফর করবে, তাদের নির্ধারিত সময় আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর ঢাকায় পৌঁছানোর কথা রয়েছে ইংলিশ কিক্রেটারদের। প্রায় ১ মাসের সফর শেষ হবে দুটি টেস্ট দিয়ে। এর আগে অস্ট্রেলিয়া গত বছর নিরাপত্তা শঙ্কায় সফর স্থগিত করে। চলতি বছর অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপেও দল পাঠায়নি তারা। তবে ১৬ দলের টুর্নামেন্টে দল পাঠায় ইংল্যান্ড। কোনো সমস্যা ছাড়াই সফলভাবে টুর্নামেন্ট আয়োজন করে বাংলাদেশ।