এপ্রিল মাসে বাংলাদেশে আসছে অ্যামাজন-আলীবাবা

Print Friendly

এপ্রিল মাসে বাংলাদেশে কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান অ্যামাজন ও আলীবাবা । চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে অ্যামাজন ও আলীবাবার সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করার জন্য একটি পাইলট প্রজেক্ট চালু হতে যাচ্ছে। এই প্রজেক্ট সফল হলে আগামী এপ্রিল মাসে অ্যামাজন ও আলীবাবার সঙ্গে আনুষ্ঠানিক চুক্তির মাধ্যমে কাজ করবে বাংলাদেশ ডাক বিভাগ। ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ইক্যাব) আশা করছে, অ্যামাজন ও আলীবাবার কার্যক্রম শুরু হলে দেশের ই-কমার্সে প্রচুর কর্মসংস্থান বাড়বে ।
ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ইক্যাব) এক তথ্যানুযায়ী, এই মুহূর্তে দেশের ই-কমার্সে জড়িত এক হাজার ওয়েবসাইট আর আট হাজার ফেসবুক পেইজ। ই-কমার্সে বর্তমানে তরুণ উদ্যোক্তার সংখ্যাই বেশি। এসব তরুণরা ফেসবুক পেইজ এবং ওয়েবসাইটের মাধ্যমে নিজেদের ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছে। নিজের জীবিকা নির্বাহের পাশাপাশি কর্মসংস্থানেরও সৃষ্টি হয়েছে।
এমন পরিস্থিতিতে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ই-কমার্স জায়ান্ট অ্যামাজন ও আলীবাবা বাংলাদেশে আসলে ই-কমার্স খাতে কেমন প্রভাব পড়বে জানতে চাইলে ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ইক্যাব) সভাপতি রাজীব আহমেদ বলেন, বাংলাদেশে ই-কমার্স সম্ভাবনাময়। মুক্তবাজার অর্থনীতিতে এমন দুইটি বড় কোম্পানির বাংলাদেশে ব্যবসা করাকে স্বাগত জানাই। এ দুই কোম্পানি এলে তরুণ উদ্যোক্তা কমে যাবে অন্যদিকে প্রচুর কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে।
ই-কমার্স বিষয়ক সরকারকে আমরা প্রোপোজাল দিয়েছি জানিয়ে ই-ক্যাব প্রেসিডেন্ট বলেন, ই-কর্মাসের উন্নয়নের স্বার্থে সরকারের কাছে আমরা প্রস্তাবনা দিয়েছি যেন দেশীয় উদ্যোক্তাদের কাছ থেকে ভ্যাট-ট্যাক্স না নেওয়া হয়। অন্যদিকে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের ক্ষেত্রে যেন ট্যাক্স বেশি ধরা হয়।
এর আগে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম এক অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, অ্যামাজন ও আলীবাবার সঙ্গে স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করতে চাই। এর ফলে ডাক বিভাগের সম্প্রসারণ হবে এবং একই সঙ্গে তাদের রাজস্ব বৃদ্ধি পাবে।