জুন থেকে এক চুলা ৯০০ ও দুই চুলা ৯৫০ টাকা

Print Friendly

ভোক্তা পর্যায়ে দুই বছরের মাথায় আবারও বাড়ানো হয়েছে গ্যাসের দাম। আর বাড়তি দাম দুই ধাপে কার্যকর হবে। প্রথম ধাপ ১ মার্চ থেকে আর দ্বিতীয় ধাপ ১ জুন থেকে। গৃহস্থালি খাতে আগামী ১ মার্চ থেকে এক চুলা ৭৫০ টাকা ও দুই চুলা ৮০০ টাকা নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। তবে দ্বিতীয় দফায় এর দাম আরও বাড়িয়ে এক চুলা ৯০০ টাকা ও দুই চুলা ৯৫০ টাকা করা হবে। দ্বিতীয় দফা আগামী ১ জুন থেকে কার্যকর হবে।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে রাজধানীর কারওয়ান বাজারের বিইআরসি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান বিইআরসির চেয়ারম্যান মনোয়ার ইসলাম।

সংবাদ সম্মেলনে বিইআরসির চেয়ার‌ম্যান মনোয়ার ইসলাম বলেন, ‘মানুষের পকেটের উপর যাতে চাপ না পড়ে সেজন্য দুই দফায় বাড়ানো হয়েছে।’

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বাণিজ্যিক ইউনিট মার্চে ১৪.২০ টাকা এবং জুনে ১৭.০৪ টাকা হবে। আর সিএনজির দাম মার্চে প্রতি ঘনমিটার ৩৮ টাকা ও জুনে ৪০ টাকা করা হয়েছে। ক্যাপটিক পাওয়ার ১ মার্চ থেকে প্রতি ঘনমিটার ৯.৯৮ এবং ১ জুন থেকে ৯.৬২ টাকা করা হয়েছে। বিদ্যুৎ খাতের গ্যাসের দাম মার্চ থেকে ২.৯৯ টাকা ও জুন থেকে ৩.১৬ টাকা করা হয়েছে।

বিদ্যুৎ, সার শিল্প ও সব শ্রেণির গ্রাহকের ক্ষেত্রে গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়েছে।

চা বাগানে গ্যাসের দাম ১ মার্চ থেকে ৬.৯৩ টাকা আর ১ জুন থেকে ৭.৪২ টাকা করা হয়েছে। সার কারখানায় মার্চে ২.৬৪ টাকা এবং জুনে ২.৭১ টাকা করা হয়েছে। এছাড়া গৃহস্থালীর কাজে মিটারে গ্যাসের দাম প্রতি ঘনমিটার ১ মার্চ থেকে ৯.১০ টাকা এবং ১ জুন থেকে ১১.২০ করা হয়েছে।

কোম্পানিগুলোর পক্ষ থেকে ৯৪.০৯ শতাংশ হারে বাড়ানোর আবেদন ছিল। আমরা পর্যালোচনা করে দুই দফায় ২২.০৭ শতাংশ হারে বাড়িয়েছি।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে বিইআরসির চেয়ার‌ম্যান মনোয়ার ইসলাম, সদস্য আবদুল আজিজ খান, রহমান মুরশেদ, মিজানুর রহমান ও মাহমুদুল হক ভূইয়া উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, বর্তমানে গৃহস্থালি খাতে এক চুলা ৬০০ টাকা ও দুই চুলা ৬৫০ টাকা করে দিচ্ছেন গ্রাহকেরা।