জেএমবি নেতা সাইদুরসহ ৩ জনের নতুন করে বিচার শুরু

Print Friendly

জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি) তৎকালীন প্রধান সাইদুর রহমানসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে নতুন করে অভিযোগ গঠন করে তাদের বিচার শুরুর আদেশ দিয়েছে আদালত।

আজ মঙ্গলবার সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলায় ঢাকা মহানগর দায়রা জজ মো. কামরুল হোসেন মোল্লা বিচার শুরুর আদেশ দেন।

আগামী ১৪ মার্চ আসামিদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য দিন ঠিক করেছেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল।

তিনি জানান, চার্জ গঠনকালে সাইদুর রহমান আদালতে হাজির ছিলেন।

মামলার অপর দুই আসামি হলেন-সাইদুর রহমানের দেহরক্ষী আব্দুল্লাহেল কাফি ও কাফির স্ত্রী আয়শা আক্তার। তারা হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে পলাতক রয়েছেন।

তাপস কুমার পাল জানান, সাইদুর রহমানের পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না। তিনি নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছেন এবং এই ঘটনার সঙ্গে তিনি জড়িত নন বলে আদালতকে জানিয়েছেন।

২০১০ সালের ২৫ মে ঢাকার দনিয়া নূর মসজিদের কাছে একটি বাড়ি থেকে মাওলানা সাইদুরসহ ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়। সে সময় তাদের কাছে উগ্র মতবাদের বই ও সরকারবিরোধী প্রকাশনার কাগজপত্র পাওয়া যায় বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তরফ থেকে বলা হয়।

পরে দেশকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টার অভিযোগে ঢাকার কদমতলী থানায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। অভিযোগপত্র হওয়ার পর ২০১১ সালের ১৬ জানুয়ারি ঢাকার ৬ নম্বর বিশেষ জজ আদালতে বিচারও শুরু হয়; রাষ্ট্রপক্ষে ৫ জনের সাক্ষ্য শোনে আদালত।

সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলায় বিচারের আগে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নেয়ার বাধ্যবাধকতা থাকলেও এ মামলায় তা না থাকায় বিচার মাঝ পথে আটকে যায়। অনুমোদনের জন্য ২০১৫ সালের ৮ সেপ্টেম্বরে নথিপত্র পাঠানো হয় মন্ত্রণালয়ে।

গতবছর ২৬ অগাস্ট অনুমোদন পাওয়া গেলে নতুন করে গতি পায় এ মামলার কার্যক্রম। এর ধারাবাহিকতায় আদালত গত ৪ জানুয়ারি পুলিশের দেয়া অভিযোগপত্র নতুন করে আমলে নিয়ে অভিযোগ গঠনের শুনানির দিন ঠিক করে দেয়।